1. theprovatibarta@gmail.com : admin : Abu Taher Prince
মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন
প্রধান খবর
বঙ্গবন্ধু-কন্যাকে নিয়ে টুকরো স্মৃতি করোনায় আক্রান্ত এমপি বাবু উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় দেশকে এগিয়ে নিতে তরুণ প্রজন্মকে সুযোগ করে দেয়া আহ্বান পুতুলের কয়রা-পাইকগাছাবাসীকে এমপি বাবু’র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা কমমূল্যে পাওয়া যাবে করোনার ভ্যাকসিন ইদ-উল-আযহা উপলক্ষেএতিম শিশুদের মাঝে জেলা প্রশাসন খুলনার উদ্যোগে গরু-ছাগল বিতরণ এমপি উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ করোনায় আক্রান্ত ফের শারিরিক অবস্থার ফের অবনতি ডা. জাফরুল্লা’র করোনায় জীবনরক্ষাকারী প্রথম ওষুধ পাওয়া গেছে কবি প্রণতি। রবীন্দ্রনাথের ছোট গল্পে প্রকৃতি ও মানব জীবন কয়রায় করোনায় বিপর্যস্ত পরিবারের পাশে এম আলিউজ্জামান তায়জুল ভোর রাতে রোজাদারদের মাঝে স্বপ্নযাত্রীর সাহরী বিতরণ জমিজমা বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় কৃষক নিহত করোনায় আক্রান্তদের জন্য তৃতীয় বারের মত বাংলাদেশকে সহযোগিতা ভারতের মানবতার ডাকে সাড়া দিয়ে বিপর্যস্ত মানুষের কল্যাণে এগিয়ে আসুন: সাংসদ বাবু খুলনা জেলা প্রশাসনের মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে শাক-সবজি, দুধ, ডিম কেনা যাবে করোনা সন্দেহে আইসিউতে ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন সপ্তম বছরের মত অসহায় কৃষকের ধান কাটছে স্বপ্নদেখো!! নাইকো মামলায় আন্তর্জাতিক আদালতে জয় পেল বাংলাদেশ
add

জেনে নিন মাস্ক ও পিপিই ব্যবহারের সঠিক নিয়ম !!

  • বৃহস্পতিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২০
  • ৭৩ বার পড়া হয়েছে

স্বাস্থ্য ডেস্ক

করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে নিরাপদ থাকতে মাস্ক ব্যবহার সবার জন্য বাধ্যতামূলক ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এছাড়া স্বাস্থ্যকর্মীদের ক্ষেত্রে প্রয়োজন অনুযায়ী পিপিই ব্যবহারের নির্দেশ আছে।

তবে মাস্ক ও পিপিই শুধু যেনতেনভাবে ব্যবহার করলেই চলবে না। যথাযথ নিয়ম মেনে ব্যবহার করতে হবে। তা না হলে এসব ব্যবহারের পরও সুস্থ ব্যক্তি কোভিড-১৯ দ্বারা সংক্রমিত হতে পারেন।

আসুন জেনে নেই, মাস্ক ও পিপিই ব্যবহারের সঠিক নিয়ম-

মুগদা জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন ও ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডা. রাহনুমা পারভীন বলেন, ‘একেক ধরনের মাস্ক একেক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়। যেকোন ভালোমানের মাস্ক ধুলোবালি থেকে সুরক্ষা জোগায় এবং রোগাক্রান্ত ব্যক্তির কাছ থেকে জীবাণু ছড়াতে বাধা দেয়। তবে এন-৯৫ মাস্ক অতিক্ষুদ্র আকারের জীবাণু, বাতাসের ও কলকারখানার সূক্ষ ধূলিকণা ইত্যাদি প্রতিরোধে বেশ কার্যকর। এছাড়াও বাজারে এন-৯৫ এর মতো কেএন-৯৫ মাস্ক পাওয়া যাচ্ছে। বলা হচ্ছে, দুটো মাস্কের গুণাগুণ প্রায় একইরকম।’

তিনি বলেন, ‘আরেকটি হলো সার্জিক্যাল মাস্ক। এই মাস্কের দুটি বা তিনটি বিশেষ লেয়ার থাকে। ফলে সার্জিক্যাল মাস্কও ভালো সুরক্ষা জোগায়।আর অন্যান্য যেসব মাস্ক বাজারে পাওয়া যাচ্ছে এগুলো সুস্থ ব্যক্তিকে জীবাণু থেকে কতটা সুরক্ষা দিতে পারে তা নিয়ে প্রশ্ন আছে, তবে রোগাক্রান্ত ব্যক্তি যদি সবসময় মাস্ক পরে থাকেন, তাহলে তা জীবাণু ছড়ানো রোধ করতে সাহায্য করবে।অন্যান্য দেশে এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহারের আগে ফিটনেস টেস্ট করা হয়। অর্থাৎ মুখের আকৃতির সঙ্গে যে মাস্ক পুরোপুরি এঁটে যায়, সেই মাস্ক সরবরাহ করা হয়। কারণ একেকজনের মুখায়ব একেকরকম হবে। আর মাস্ক ফিট না করলে তা কোনভাবেই জীবাণু থেকে সুরক্ষা দিতে পারবে না। আর প্রতিবার এই মাস্ক পরার পর অবশ্যই সিল চেক করে নিতে হবে।আমাদের দেশে ফিট টেস্ট করানোর সুবিধা অপ্রতুল।’

ডা. রাহনুমা পারভীন বলেন, ‘এন-৯৫ মাস্ক সর্বোচ্চ ৮ ঘন্টা ব্যবহার করা যায় এবং কেএন-৯৫ মাস্ক সর্বোচ্চ ৪ ঘন্টা ব্যবহার করা উত্তম। তবে বলা হয়ে থাকে যেকোন মাস্কই যদি কোন বডি ফ্লুইড দ্বারা ভিজে যায় কিংবা ময়লা হয়ে যায় তাহলে সাথে সাথে পরিবর্তন করতে হবে।সার্জিকাল মাস্ক নষ্ট না হওয়া পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে, তবে একবার খুলে ফেললে সেটা ফেলে দিতে হবে।বর্তমানে বিশ্বব্যাপী মাস্কের তীব্র সংকটের কারণে আন্তর্জাতিকভাবে এন৯৫ মাস্ক জীবাণুমুক্ত করে পুনঃব্যবহারের কিছু নিয়মকানুন ঘোষিত হয়েছে।তবে তা কেবলমাত্র ব্যবহারের পর কোনভাবে নষ্ট না হওয়া এবং কোভিড রোগীর এরোসল সৃষ্টিকারী কোনকাজে ব্যবহৃত না হলেই প্রযোজ্য হবে।একটি এন৯৫ মাস্ক জীবাণুমুক্ত করে সর্বোচ্চ ৫ বার ব্যবহার করা যাবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘নন ওভেন ফেব্রিক দিয়ে বানানো পিপিই সবচেয়ে নিরাপদ। সম্ভব হলে কোভিড রোগীর চিকিৎসার জন্য ওয়ানটাইম ইউজ পিপিই ব্যবহার করা উত্তম। সাধারণ মানুষের সবার জন্য পিপিই ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক নয়। যখন আমরা বাজারে যাই বা টুকটাক কাজে বাইরে বের হই তখন ভালোমানের মাস্ক ও গ্লাভস পরলেই যথেষ্ট তবে ঘরে ফেরার পর সাবান দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুয়ে ফেলতে হবে। পোশাকও পালটে ফেলতে হবে। স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য এবং যারা সংক্রণের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ পেশাতে আছেন, তাদের কর্মক্ষেত্রে পিপিই পরা জরুরী। বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে, যখন কোন স্বাস্থ্যকর্মী কোন রোগী দেখবেন, তখন করোনার সন্দেহ মাথায় রেখেই তাকে রোগী দেখতে হবে। এছাড়াও তারা যখন শণাক্ত হওয়া করোনা রোগী দেখবেন, করোনাভাইরাস টেস্ট করবেন, আইসোলেশনে থাকা রোগীকে দেখবেন এবং আইসিইউ বা নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রের দায়িত্বে থাকবেন তখন পিপিই পরা জরুরী। মনে রাখা ভালো, পিপিই পরা ও বিশেষ করে খোলার সঠিক নিয়ম জানতে হবে। তা না হলে পিপিই ব্যবহার করলেও করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।’

সুত্র- সারাবাংলা

add

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো খবর
add
© theprovatibarta 2020 All rights reserved. কারিগরি সহায়তা:
Theme Customized By BreakingNews